অ্যাডসেন্স আবেদনের পর ওয়েবসাইট গুগল পলিসিতে নাই মেইল পেলে আপনার করনীয় কি ?

অ্যাডসেন্সে আবেদন করার পর শুরু হয় অ্যাডসেন্স থেকে একটি পজেটিভ মেইল পাবার অপেক্ষা। কিন্তু গুগল যখন আপনার সকল আশা মাটি করে দিয়ে মেইল দেয় “Site does not comply with Google policies” তখন আমরা একটু হলেও কষ্ট পাই যে এত কষ্ট করে আর্টিকেল লিখলাম অথছ গুগল আমাকে অ্যাডসেন্স দিল না!আসলে এতে গুগলের কোন দোষ নাই,দোষ আমার আর আপনার।যাই হোক Site does not comply with Google policies মেইল পেলে আপনার কি কি করনীয় তা নিয়েই আজকের আয়োজন।

কপিরাইট বিষয়বস্তুঃ

কপি কন্টেন্ট ব্যাবহার করে আপনি অ্যাডসেন্স থেকে অর্থ উপারজন করতে পারেবেন না।আপনি হয়ত বলবেন ভাই আমি তো আর্টিকেল নিজে লিখেছি তাহলে কপি কিভাবে করলাম?আমি আপনার সাথে একমত যে আপনি কপি করেন নি ,তবে আমার একটি প্রশ্ন আছে সেটি হল আপনার সাইটে ব্যাবহার করা ইমেজ কোথায় থেকে নেওয়া?অনেকেই গুগল থেকে ইমেজ নিয়ে ব্যাবহার করে।এই ক্ষেত্রে আপনি নিজে কন্টেন্ট লিখলেও তা কপি কন্টেন্ট হিসাবে বিবেচনায় নেওয়া হবে।আপনি যদি গুগল থেকে ইমেজ নিয়ে ব্যাবহার করে থাকেন তাহলে এখনই ইমেজ গুলো সরিয়ে ফেলুন।আর গুগল বা ইন্টারনেটের অন্য কথাও থেকে ইমেজ নিলে ইমেজের ফাইল নাম এবং সাইজ পরিবর্তন করে নিন।আর ইমেজ এবং আর্টিকেল ২ টাই যদি আপনার নিজের হয় তাহলে আপনার আবেদন এই সমস্যার জন্য ডিসআপ্প্রভ করা হয় নি।তাহলে চলুন পরের সমাধান টা খোঁজার চেষ্টা করি।

নিষিদ্ধ / অবৈধ কন্টেন্টঃ

আপনার ওয়েবসাইটে নিষিদ্ধ / অবৈধ কন্টেন্ট নাই তো?নিষিদ্ধ / অবৈধ কন্টেন্ট হল সেই গুলা যে ধরনের কন্টেন্টে গুগল অ্যাডসেন্স আপ্প্রভ করবে না বলে আগেই ঘোষণা দিয়ে রেখেছে।যেমনঃ হ্যাকিং বা ক্র্যাকিং সামগ্রী, পর্নোগ্রাফি সম্পর্কিত সামগ্রী, তামাক, ড্রাগ এবং অ্যালকোহল সম্পর্কিত সামগ্রী, জুয়াখেলা সামগ্রী, অস্ত্র এবং সহিংসতা সংক্রান্ত উপাদান।এই ধরনের সামগ্রী কেবল গ্রহণযোগ্য নয়।আপনি চাইলে এখানে নিষিদ্ধ / অবৈধ কন্টেন্টের তালিকা দেখতে পারেন।

গুরুত্তপূর্ণ পাতা(About Us, Privacy Policy, Contact Us,DMCA)

আপনার ওয়েবসাইটে যদি About Us, Privacy Policy, Contact Us,DMCA পাতা না থাকে তাহলে গুগল আপনার আবেদনটি  প্রত্যাখ্যান করতে পারে।সুতরাং আপনার ওয়েবসাইটে এই পাতা গুলো না থাকলে এখনি তৈরি করে ফেলুন।অনেকেই প্রশ্ন করে এই পেজ গুলোতে কি লিখবো?আচ্ছা আমি বলে দিচ্ছিঃ

About Us- এই পাতায় আপনি আপনার নিজের সম্পর্কে লিখেবেন অথবা আপনার সাইট সম্পর্কে লিখেবেন।

Privacy Policy-এই পাতায় আপনার সাইটের নীতিমালা সম্পর্কে লিখবেন।এখন প্রশ্ন হল নীতিমালা কি?নীতিমালা হল সেই আইন,যা কোন ব্যাবহার কারিকে আপনার সাইট ব্যাবহার করতে এসে মানতে হয়।আপনি চাইলে এখান থেকে একটি ফ্রী নীতিমালা আপনার ওয়েবসাইটের জন্য তৈরি করতে পারেন।

Contact Us- আপনার সাথে যোগাযোগ করা যায় এই রকম কিছু তথ্য এই পেজে দিতে হবে।

DMCA-এই পেজটা সব সাইটের একই রকম হয়।আপনি অন্য কোন সাইটে দেখে সেইটার মত করে একটা কিছু লিখে দিবেন।

ইউনিক এবং কুয়ালিটি কন্টেন্টঃ

ইউনিক কন্টেন্ট কি এটা নিয়ে প্রথমেই বলেছি।এবার জানার বিষয় হল কুয়ালিটি কন্টেন্ট কি?ধরেন আপনি একটি আর্টিকেল লিখলাম কিন্তু আপনি পরে সেইটার আগা মাথা কিছুই বুঝলেন না।শুধু কিছু একটা লিখলেই হবে না,আপনার লেখা কে সব সময় সুন্দর ভাবে উপাস্থাপন করতে হবে।আপনাকে লেখার সময় মনে রাখতে হবে যে আপনাকে একই সাথে গুগল এবং আপনার ওয়েবসাইট ব্যাবহারকারী উভয়কে খুশি রাখতে হবে।এমন আর্টিকেল লিখবেন না যা কখনও ইন্টারনেটে কেউ খুঁজে না।বরং এমন আর্টিকেল লিখবেন যার ইন্টারনেট জগতে প্রচুর চাহিদা রয়েছে।এবং আর্টিকেল লিখার সময় কোন কথা অল্পতে বুঝানোর চেষ্টা করবেন না, কারন সবার বুঝার ক্ষমতা আপনার মত নাও হতে পারে।সুতারাং কোন বিসয়ে আলোচনা শুরু করলে সেই বিসয়ে বিসদ বিবারন আপনার লেখায় তুলে ধরুন।

ওয়েবসাইট ডিজাইন,ইউজার ইন্টারফেস এবং ন্যাভিগেশনঃ

অ্যাডসেন্স আপ্প্রভাল পাওয়ার জন্য আপনার ওয়েবসাইট বা ব্লগ ডিজাইন অনেক গুরুত্তপূর্ণ ভুমিকা রাখে।আপনার ওয়েবসাইট লোড হতে যদি অনেক টাইম নেয় তাহলে কোন বিজ্ঞাপনদাতা আপনার ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপন দিতে চাইবে না।সুতরাং এই বিষয় নিশ্চিত করুন যে আপনার ওয়েবসাইট খুব দ্রুত লোড হচ্ছে।আপনার ওয়েবসাইটে যদি কোন ব্রকেন লিঙ্ক থাকে তাহলে আপনার অ্যাডসেন্স আপ্প্রভ হবে না।এখন প্রশ্ন হল ব্রকেন লিঙ্ক কি?ব্রকেন লিঙ্ক বা ভাঙ্গা লিঙ্ক হল সেইগুল যেই পোস্ট গুলো আপনি আপনার সাইটে করেছিলেন এবং এক সময় ডিলিট করে দিয়েছিলেন কিন্তু সার্চ এঞ্জিনে ইনডেক্স থাকার ফলে গুগল বট আপনার সাইট যখন ক্রল করতে আসে তখন সে আপনার সেই ডিলিট করা লিঙ্ক গুলো 404 Not Found পায়।আর এই ব্যাপারটা গুগলের একবারেই পছন্দ না।যদি আপনার সাইটে এই রকম কোন লিঙ্ক থাকে তাহলে তা গুগল ওয়েবমাস্টার টুলস থেকে ডিলিট করে দেন।কিভাবে ৪০৪ লিঙ্ক ডিলিট করতে হয় তা জানতে এই লেখাটি পড়ুন।  আপনার সাইট এমন ভাবে করবেন যেন দেখে মনে হয় আপনার সাইট টি কোন রোবট নয় বরং মানুষের জন্য তৈরি করা হয়েছে।

ওয়েবসাইট ট্রাফিক এবং তার উৎসঃ

কোন ওয়েবসাইট ট্রাফিক ছাড়াই আমি অ্যাডসেন্স পেয়েছি তাই আমি মনে করি অ্যাডসেন্স আপ্প্রভ না হবার পিছনে ওয়েবসাইট ট্রাফিকের কোন কারন নাই।তবে আমাদের সাইটে যদি ভিজিটর আসে তাতে কি আমাদের কোন ক্ষতি আছে?তবে অনেক অভিজ্ঞ জনের মুখে সুনেছি যে ওয়েবসাইটে ট্রাফিক থাকলে দ্রুত আপ্প্রভ দেয় গুগল।তবে সার্চ ভিজিটর থাকলে আরও দ্রুত আপ্প্রভ পাবেন।

ওয়েবসাইটের বয়সঃ

অনেকেই বলে থাকে যে ডোমেইনের বয়স ৬ মাস না হলে অ্যাডসেন্স আপ্প্রভ হয় না।আমি এই কথাটা মানতে রাজি না।ডোমেইন এর বয়স অ্যাডসেন্স আপ্প্রভ রাখে এটা ঠিক তবে ডোমেইন এর বয়স যে ঠিক ৬ মাস হতে হবে এই কথা একদম ভিত্তিহিন।ডোমেইনের বয়স বেশি হলে অ্যাডসেন্স দ্রুত আপ্প্রভ হয় আর কম হলে একটু সময় নেয়।

অপর্যাপ্ত কন্টেন্টঃ

কত গুলো আর্টিকেল আসলে পর্যাপ্ত এটা বলা সম্ভব না।কারন আমি অ্যাডসেন্স আপ্প্রভ পেয়েছিলাম মাত্র ১৭ তা আর্টিকেল দিয়ে।আবার আমার এক বন্ধু ৪৫+ আর্টিকেল দিয়ে অ্যাডসেন্স আপ্প্রভ পায় নি।আমার মনে হয় অপর্যাপ্ত কন্টেন্ট বলতে আসলে কন্টেন্ট সংখ্যা বুঝায় না,আর্টিকেল এর দীর্ঘ বুঝায়।কারন আমার বন্ধুর আর্টিকেল গুলা ছিল ৩৫০-৫০০ ওয়ার্ড এর আর আমার গুলা ছিল সর্ব নিম্ন ৭৫০ ওয়ার্ডের।তাই চেষ্টা করবেন যেন আপনার সাইট এ কিছু আর্টিকেল যেন ২০০০+ ওয়ার্ডের হয়।

শেষ কথাঃ

যদি আপনি অ্যাডসেন্স থেকে কখনও মেইল পান Site does not comply with Google policies তাহলে উপরে আলোচিত বিসয়ের সাথে আপনার সাইটের কোন মিল পেলে সেটির সমাধান করে আপনি বার আবেদন করেন আশা করি অ্যাডসেন্স পেয়ে যাবেন। কেমন লাগল জানতে ভুলবেন না।ধন্যবাদ।

সূত্রঃ ইন্টারনেট।

নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন