ঝকঝকে দাঁত পেতে ৫টি ঘরোয়া পদ্ধতি

চা-কফি বেশি পান করার অভ্যাস বা ধূমপানের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসেবে দাঁত হলদে হয়ে যাওয়া নতুন কিছু নয়। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গেও দাঁত নিজস্ব রঙ হারায়। আবার অনেক সময় কোনো ওযুধের ব্যবহারের ফলেও দাঁত হলুদ হয়ে যাতে পারে। দাঁতের ফাঁকেও কালো ছোপ পড়তে পারে। চিকিৎসকের পরামর্শ তো নিতেই পারেন, তবে বাড়িতে বসেই কিছু পদ্ধতি প্রয়োগ করে দেখতে পারেন।

* বেকিং সোডা: বেকিং সোডা দাঁত ঝকঝকের পাশাপাশি দাঁতের ফাঁকে জমে থাকা প্লাক পরিষ্কার করতেও বেশ কার্যকরী। আধ চা চামচ বেকিং সোডা নিয়ে টুথপেস্টের সঙ্গে মিশিয়ে সপ্তাহে ২ বার সেটা দিয়ে ব্রাশ করুন। শুধু বেকিং সোডার সঙ্গে কিছুটা পানি মিশিয়ে একটু ঘন করে আঙুল দিয়েও মাজতে পারেন সপ্তাহে ২ বার। দাঁত সাদাও থাকবে, সঙ্গে দাঁতের ফাঁকে ময়লাও জমবে না।
লেবু এবং কমলা: পাতি লেবুর রসে ব্লিচিং এজেন্ট থাকে। ফলে দাঁত খুব ভালো পরিষ্কার হয় এতে। লেবুর খোসা ফেলে না দিয়ে তা বেটে বা গ্রাইন্ড করে সেটা দিয়ে দাঁত মাজতে পারেন। লেবুর রসে একটু পানি মিশিয়ে মুখ কুলি করলেও ভালো ফল পাবেন। একই রকমভাবে কমলার খোসা এবং বীজে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম এবং ভিটামিন সি থাকে, যা মুখের ব্যাক্টেরিয়ার সঙ্গে লড়ে। লেবুর মতো কমলার খোসা দিয়ে দাঁত মাজলেও একই উপকার পাবেন।

* আপেল: দিনে একটি আপেল খেলে শুধু ডাক্তারই দূরে থাকেন না, সঙ্গে দাঁতের হলুদ ভাবও দূরে থাকে। আপেল খাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলবেন না। খানিকক্ষণ অপেক্ষা করুন। কেননা এর মধ্যে থাকা ম্যালিক অ্যাসিড দাঁত পরিষ্কার রাখে।

* স্ট্রবেরি: কয়েকটি স্ট্রবেরি নিয়ে পেস্ট বানিয়ে সপ্তাহে তিন দিন রাতে শোয়ার আগে দাঁত মাজুন। ২ সপ্তাহের মধ্যেই ফল বুঝতে পারবেন। একই রকমভাবে লবন দিয়েও দাঁত মাজতে পারেন। লবন খুব ভালো দাঁত পরিষ্কার করে।

* তুলসি পাতা: তুলসি পাতা বেটে পেস্ট বানিয়ে সপ্তাহে ৩ দিন দাঁত মাজুন। এটা দাঁত শুধু পরিষ্কারই রাখে না, মুখের দুর্গন্ধ দূর করতেও সাহায্য করে।

নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন