নবি-রাসুলদের নিদর্শনে রয়েছে বরকত ও উপকারিতা !!

হজরত শিমবিল আলাইহিস সালাম যখন তালুতকে তাদের বাদশাহ হিসেবে ঘোষণা দিলেন তখন তারা তাঁর অনুসারীদের মধ্যে অনেকেই তালুতকে বাদশাহ হওয়ার নিদর্শন দেখতে চায়। তখন আল্লাহ তাআলা তাদের জন্য কিছু নির্দশন ভর্তি একটি সিন্দুক ফেরেশতাদের মাধ্যমে তালুতের দরজায় পাঠালেন।

এ সিন্দুকে ছিল হজরত মুসা আলাইহিস সালাম ও হজরত হারুন আলাইহিস সালামের ব্যবহৃত কিছু জিনিসপত্র। যা বনি ইসরাইলের বিরোধীরা লুণ্ঠন করে নিয়েছিল।

নবি-রাসুল ও ওলিদের নিদর্শনে রয়েছে বরকত ও উপকারিতা। যে বরকত ও উপকারিতার পেয়েছিল বাদশাহ তালুত ও হজরত শিমবিল আলাইহিস সালাম।

আল্লাহ তাআলা নবি মুসা ও হারুনের নিদর্শনসমূহ বরকতস্বরূপ ফেরেশতাদের মাধ্যমে সে সিন্দুক হজরত শিমবিল কর্তৃক নিযুক্ত বাদশাহ তালুতের কাছে পৌঁছে দিয়েছিলেন। যার বর্ণনা পবিত্র কুরআনে আল্লাহ তাআলা সুস্পষ্টভাবে তুলে ধরে বলেন-

আয়াতের অনুবাদ

আয়াত পরিচিতি ও নাজিলের কারণ
সুরা বাকারার ২৪৮ নং আয়াতে আল্লাহ তাআলা বনি ইসরাইলের জন্য কিছু নিদর্শনসহ একটি সিন্দুক হজরত শিমবিলের কাছে প্রেরণ করলেন। যে নিদর্শন দেখার মাধ্যমে বনি ইসরাইল সম্প্রদায় হজরত শিমবীলকে তাদের বাদশাহ হিসেবে বিশ্বাস করে।

আলোচ্য আয়াতে আল্লাহ তাআলা বনি ইসরাইলদের জন্য বাদশাহীত্বের চিহ্নস্বরূপ সিন্দুক পাঠালেন। এ সিন্দুকটির মধ্যে হজরত মুসা আলাইহিস সালাম ও হজরত হারুন আলাইহিস সালামের কিছু জিনিসপত্র ছিল। যা বনি ইসরাইলের শত্রুরা তাদের কাছ থেকে কেড়ে নিয়েছিল।

বাদশাহ নির্বাচনের পর বনি ইসরাইলরা যখন তালুতের কাছে নিদর্শন চায় তখন আল্লাহ তাআলা ফেরেশতাদের মাধ্যমে তা বাদশাহ তালুতের দরজায় পৌঁছে দেন।

এ নিদর্শন দেখে বনি ইসরাইল সম্প্রদায় আনন্দিত হয় এবং তারা হজরত শিমবিল কর্তৃক নির্বাচিত বাদশাহ তালুতকে রাজত্ব প্রমাণের নিদর্শন হিসেবে মেনে নেয়।

তাছাড়া এ সিন্দুক ছিল তাদের জন্য মহান আল্লাহর পক্ষ থেকে একটি অলৌকিক নিদর্শন এবং বিজয় লাভের ও তাদের মনে প্রশান্তি লাভের উপকরণ। আর প্রশান্তির অর্থই হলো এই যে, ‘তার খাস বান্দাদের ওপর এমন বিশেষ সাহায্যের অবতরণ; যার কারণে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের ময়দানে যখন বড় বড় সিংহের মতো বীরদেরও অন্তর কেঁপে ওঠে।

ওই সময় ঈমানদারদের অন্তর শত্রুর ভয় শূন্য এবং বিজয় ও সফলতা অর্জনের আশায় পরিপূর্ণ থাকে।

এ থেকে জানা যায় যে, নবি-ওলিদের বরকতময় জিনিসের নিদর্শন থেকে আল্লাহর রহমতে বরকত ও উপকারিতা রয়েছে।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে কুরআনের আদেশ ও উপদেশ দৈনন্দিন জীবনে বাস্তবায়ন করার তাওফিক দান করুন। নবি রাসুল ও ওলিদের নিদর্শনকে মনে প্রাণে বিশ্বাস করে তাঁর উপকারিতা লাভের তাওফিক দান করুন। অন্যান্য নবির উম্মতদের মতো আল্লাহর বিধান লংঘনের মারাত্মক অপরাধ থেকে মুক্ত থাকার তাওফিক দান করুন। আমিন।

নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন