ঠোঁট গোলাপী করার উপায়

আজকের সম্পূর্ণা ২৪ রেসিপি আয়োজনে রয়েছে ঠোঁট গোলাপী করার উপায় সম্পূর্ণা ২৪ আপনাদের কে দেখাবে ঠোঁট গোলাপী করার উপায়

কালো ঠোট একটি সাধারন সমস্যা, যা প্রচুর মানুষ কে প্রভাবিত করে। নারীরা তাদের রূপ এবং মুখের অন্যান্য বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে খুবই সচেতন। তারা তাদের ঠোঁটে বিভিন্ন প্রসাধনী ব্যবহার করে যা তাদের চেহারাকে উজ্জ্বল এবং আরও সুন্দর করে তুলে। তবে বেশির ভাগ পণ্যই অস্থায়ী ফলাফল এবং দীর্ঘস্থায়ী পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া প্রদান করে। কিছু প্রসাধনী যেমন লিপস্টিক ও লিপ গ্লোস ঠোঁটকে শুষ্ক এবং গাঢ় করে তোলে। সুন্দর ঠোটের জন্য এইসব পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া থেকে পরিত্রান পেতে সবচেয়ে ভাল উপায় বাড়িতে প্রতিকারের চেষ্টা করা। নিয়মিত টিপস পেতে পোস্টটি শেয়ার করে আপনার প্রফাইলে রাখুন। Riyaz Seikh

মধু ও লেবুর: মধু ও লেবুর রসের মিশ্রণ তৈরি করুন এবং আপনার ফ্রিজ মধ্যে এটি ১০ মিনিট রেখে দিন। এবার আপনার ঠোঁটে এই মিশ্রণটি প্রয়োগ করুন এবং এভাবেই এক ঘন্টা লাগিয়ে রাখুন। এক টি ঘণ্টা পরে আপনার ঠোট ধুয়ে ফেলুন। প্রতিদিন ২ থেকে ৩ বার আপনি এই প্রতিকারটি ব্যাবহার করবেন। মনে রাখবেন, লেবু চামড়ার স্বাভাবিক রং কমাতে পারে। তাছাড়া মধু চামড়ার পুষ্টিহীনতার অভাব দূর করে এবং ঠোটকে আরও স্বাস্থ্যসম্মত করে তুলে। মধু ঠোটকে আগের চেয়েও বেশী গোলাপী করতে সাহায্য করে।

গ্লিসারিন: শুকনো ঠোঁট কালো ঠোঁটের পিছনে অন্যতম কারন গ্লিসারিনের অভাব। গ্লিসারিন আপনার ঠোঁটের আর্দ্রতা বজায় রাখতে সাহায্য করতে পারে। তাই আপনার ঠোঁটে গ্লিসারিন প্রয়োগ করুন।

পানি: পানি এবং ডিহাইড্রেসনের অভাবে কালো এবং শুষ্ক ঠোঁট হয়। বেশী বশি পানি পান করে শরীরকে আরও সতেজ রাখা উচিৎ। পানি শুষ্ক ঠোঁটের অন্যতম প্রতিকার।

বীট–পালং: বীটরুট হচ্ছে সবচেয়ে ভাল এবং কালো ঠোঁটের জন্য সবচেয়ে সহজ পদ্ধিতি। ৫ মিনিটের জন্য আপনার ঠোঁটে এক টুকরা ধোয়া বীট গাছ রুট লাগান। কিছু সময়ের জন্য এটি রেখে দিন এবং একটু পরেই দেখবেন আপনার ঠোট সব রস শোষণ করে নিবে। এর ফলে আপনার ঠোঁটের রং আরও গোলাপী হবে।

ঠোঁটের জন্য ক্ষতিকারক এমন পণ্য এড়িয়ে চলুন: সস্তা এবং নিম্ন মানের ঠোঁটের পণ্য ব্যবহার করবেন না। এসব পণ্য আপনার ঠোঁটের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য নষ্ট করবে এবং আপনার ঠোটের স্বাভাবিক রং পরিবর্তন করে দেবে। সব সময় ভেষজ পণ্য ব্যবহার করুন। আপনার ঠোঁটের ট্যানিং এবং ঠোঁটের স্বাভাবিক রং ধরে রাখতে প্রাকৃতিক ফলের জুস পান করুন।

বাদামের তৈল: ঠোঁটের অস্বাভাবিক রং হ্রাস করার জন্য আপনার ঠোঁট বাদামের তেল ব্যবহার করুন। ঘুমোতে যাওয়ার আগে এটি ব্যবহার করলে ভাল ফল পাবেন।

শসার রস: শসার রস ঠোঁটের স্বাভাবিক রং পেতে এবং আপনার ঠোঁটের রং এর উন্নতিতে আপনাকে সাহায্য করতে পারে।

লেবু: লেবু প্রাকৃতিক পরিষ্কারক এজেন্ট হিসাবে কাজ কর। এটি ঐতিহ্যগতভাবে ত্বকের গাঢ় দাগ এবং ত্বককে মসৃণ করতে ব্যবহার করা হয়। কালো ঠোঁটের জন্য সবচেয়ে কার্যকর ভেষজ প্রতিকারের একক হিসাবে এটি ব্যবহার করা হয়।
ঠোঁটে লেবুর রস প্রয়োগ করার ফলে আপনার ঠোঁট হালকা হবে। ভাল ফলের জন্য কয়েক মাস এই পদ্ধতি অনুসরণ করুন।
এক টুকরা লেবু আপনার ঠোঁটে ঘসা-মাজা করতে পারেন। এটি আরো কার্যকর হবে যদি লেবুতে কিছু চিনি ছিটিয়ে দেন। ২ থেকে ৩ সপ্তাহের জন্য এই পদ্ধতি অনুসরণ করতে পারেন।
এছাড়াও আপনি আপনার ঠোঁটকে আরও আকর্ষণী এবং উন্নত করার জন্য লেবুর রস, (প্রতিটি টেবিল চামচ 1/2) মধু এবং গ্লিসারিন দিয়ে ভাল একটি মিশ্রণ তৈরি করে নিয়মিত ব্যবহার করতে পারেন।

গোলাপ: গোলাপ আপনার ত্বককে শীতল এবং ময়শ্চারাইজিং করতে সাহায্য করে। এটি আপনার ঠোঁটের রঙকেও উন্নত করে।
কিছু পানির মধ্যে গোলাপের পাপড়ি নিন। সাথে অল্প পরিমাণ মধু যোগ করুন। এবার টা আপনার ঠোঁটে প্রয়োগ করুন। প্রতিদিন তিনবার এই পদ্ধতি ব্যবহার করলে অবশ্যই আপনি ভাল ফলাফল পাবেন।
গোলাপের পাপড়ির পেষ্ট, মধু এবং মাখন (1 tbsp প্রতিটি)দিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরি করুন। এই মিশ্রণটি সপ্তাহে 2 থেকে 3 বার আপনার ঠোঁট ব্যবহার করুন। কাঁচা দুধে গোলাপ কিছু পাপড়ি ভিজিয়ে রাখুন। এক ঘণ্টা পর এই পাপড়ির পেষ্ট,১/২ tbsp মধু এবং কিছু জাফরান নিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরি করে তা আপনার ঠোঁটের উপর প্রয়োগ করুন এবং এটি 15 মিনিটের জন্য রেখে দিন। পরে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

অলিভ অয়েল: জলপাই তেল আপনার ঠোঁটকে নরম এবং ময়শ্চারাইজিং করতে সাহায্য করে। এটি আপনার ঠোঁটকে সুন্দর করতে পারে যাতে অপরিহার্য পুষ্টি প্রচুর রয়েছে। প্রতি রাতে জলপাই তেল বা অলিভ অয়েল দিয়ে আপনার ঠোঁট ম্যাসেজ করুন। জলপাই তেলের সাথে চিনি মিশিয়ে একটি প্রাকতিক মিশ্রণ তৈরি করে কয়েক মাসের জন্য প্রতি সপ্তাহে এই মিশ্রণ ব্যবহার করুন। এটি আপনার ঠোটকে আরও পাতলা বানাবে।

চিনি: চিনি আপনার ঠোঁট থেকে সব মৃত ত্বক কোষ অপসারণে সাহায্য করতে পারে। যা একটি ভাল উপকরন।
দস্তার চিনি (3 টেবিল চামচ) এবং মাখন (2 tbsp) এর একটি মিশ্রণ তৈরি করুন। আপনার ঠোঁটে আলতো করে ব্যবহার করুন এবং. সপ্তাহের একবার করে তিন মাস ব্যবহার করলে অবশ্যই ভাল প্রতিকার পাবেন।

মধু: মধু আপনার ঠোঁটকে আর্দ্র এবং গোলাপী করতে পারে।
প্রতি রাতে আপনার ঠোঁটে সামান্য পরিমাণ মধু লাগান। এরপর কিছু গরম পানি ব্যবহার করে সকালে ধুয়ে পরিষ্কার করে ফেলুন। এই পদ্ধতিটি আপনার ঠোঁটের রঙ হালকা করবে।
ময়দা, মধু এবং দইয়ের একটি মিশ্রণ (প্রতিটি ½ টেবিল চামচ)তৈরি করুন এবং আপনার ঠোঁটের উপর এই মিশ্রণ প্রয়োগ করে আধা ঘন্টার জন্য রেখে দিন। তারপর গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। কাঙ্ক্ষিত ফলাফল পেতে এটি নিয়মিত অভ্যাস করুন।

মধু এবং বাদামের তেল: মধু (1 tbsp) এবং বাদাম তেলের (1/2 টেবিল চামচ) সঙ্গে চিনি (1 tbsp) মিশিয়ে একটি ভাল মিশ্রণ তৈরি করতে পারেন। এই মিশ্রণটি ব্যবহারের ফলে আপনার ঠোঁট নরম এবং পাতলা হবে। প্রতি সপ্তাহে এই একই পদ্ধতি অনুসরন করুন। মধু (1 tbsp) এবং বাদামের তেল (1 tbsp) মিশিয়ে তা আপনার ঠোঁটে লাগান এবং আধ ঘন্টা পরে হালকা গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। আপনার কাঙ্ক্ষিত ফলাফল পেতে এটি দিনে তিনবার ব্যবহার করুন।

ক্রিম এবং গোলাপের পাপড়ি: কিছু গোলাপের পাপড়ি পিষে একটি সূক্ষ্ম পেস্ট করা বানান। এই পেস্টে দুধের ক্রিম এবং মধু যোগ করে তা আপনার ঠোঁট প্রয়োগ করুন। ২০ মিনিটের এভাবে রাখার পরে পানি দিয়ে আপনার ঠোঁট ধোয়ে ফেলুন।
এই পদ্ধতিটি আপনার ঠোঁটকে আরও পাতলা এবং লাল করবে এবং আঁশ উঠাতে সাহায্য করবে।

পাতি লেবু এবং হলুদ: লেবু রস এবং হলুদ গুঁড়া দিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরি করুন এবং আপনার ঠোঁট এটি প্রয়োগ করুন।এবার উষ্ণ পানি দিয়ে প্রায় ১০ মিনিট পরে ধুয়ে ফেলুন।

আরও টিপস কালো ঠোঁটের জন্য: সর্বদা আলতো করে ঠোঁট ঘোষবেন। কারন জোরে জোরে ঠোঁট ঘোষলে চামড়ার ক্ষতি হতে পারে।
যতোটুকু পারেন ঠোঁটে glosses এবং lipsticks এড়িয়ে চলুন।
রাতে বিছানায় যাবার আগে আপনার ঠোঁট থেকে সব প্র

নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন