স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ভালোবাসা বাড়াতে যা বলেছিলেন মহানবী

দাম্পত্য জীবনে অনেকেই সুখি হয় না। অনেকেই সব থাকার পরও অযথাই জীবনে অশান্তি ডেনে আনে। পারস্পরিক ভালোবাসা, সম্মান ও বোঝাপড়ার অভাবে বিয়ের পরও স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে সম্পর্কের টানাপোড়েন চলতে থাকে। তবে বিশ্বের প্রতিটি ধর্মগ্রন্থই স্বামী-স্ত্রীর সুসম্পর্ক ও প্রীতি-প্রণয়ের উপর বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছে। ইসলাম ধর্মে তো স্পষ্টই বলা আছে- স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ভালোবাসা ও সৌহার্দ স্থাপিত না হলে পরিপূর্ণ ঈমানদার হওয়া যায় না, শান্তি ও নিরাপত্তা লাভ করা যায় না, এমনকি জান্নাতও লাভ করা যাবে না।

তাই রাসুলুল্লাহ (সা.) মোমিনদের পরস্পরের মধ্যে ভালোবাসা ও সৌহার্দ বৃদ্ধির জন্য একটি চমৎকার পন্থা বাতলে দিয়েছেন।

মহান রাব্বুল আল-আমিন বলেছেন, ‘তোমরা বেহেশতে প্রবেশ করতে পারবে না যতক্ষণ পর্যন্ত ঈমানদার না হবে, তোমরা ঈমানদার হতে পারবে না যতক্ষণ পর্যন্ত না পরস্পরের মধ্যে ভালোবাসা ও সৌহার্দ স্থাপন করবে। আমি কি তোমাদের এমন বিষয়ের কথা বলব না, যা করলে তোমাদের মধ্যে ভালোবাসা ও সৌহার্দ প্রতিষ্ঠিত হবে?’

সাহাবিরা বললেন, ‘নিশ্চয় ইয়া রাসুলাল্লাহ!’

তখন রাসুল সাহাবিদের বললেন, ‘তোমাদের মধ্যে বহুল পরিমাণে সালামের প্রচলন করো।’ (মুসলিম : ৮১)।

অর্থাৎ স্বামী ও স্ত্রীর মধ্যে ভালোবাসা বাড়াতে অবশ্যই প্রতিটি মুসলমানকে একে অপরকে সালাম দেয়ার অভ্যাস তৈরি করতেই হবে। পরস্পরের প্রতি সম্মান ও শ্রদ্ধাবোধ থাকতে হবে। তবেই আপনার জন্য বেহেশতের পথ আরও কণ্টকমুক্ত হয়ে উঠবে। আপনি জীবনে পরম শান্তি লাভ করবেন।

নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন