নামাজ কত রাকাআত পড়লেন, সন্দেহ হলে যা করবেন

নামাজ আল্লাহ তাআলার ফরজ ইবাদত। অনেকেই খেয়ালের ভুলে নামাজ আদায়ে বেখেয়াল হয়ে যায়। যার ফলে নামাজ কত রাকাআত আদায় করেছেন তা ভুলে যায়। সেক্ষেত্রে করণীয় সম্পর্কে প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম দিয়েছেন সুস্পষ্ট দিক-নির্দেশনা। হাদিসে এসেছে-

>> হজরত ইয়াজ ইবনে হিলাল বর্ণনা করেন আমি হজরত আবু সাঈদ রাদিয়াল্লাহু আনহুকে বললাম, আমাদের কারো যদি খেয়াল না থাকে যে, সে কতটুকু (রাকাআত) নামাজ আদায় করল, তবে সে কী করবে?

তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেছেন, ‘তোমাদের কারো সালাত (নামাজ) আদায়কালে যদি কত রাকাআত পড়েছে, সে খেয়াল না থাকে, তবে সে (শেষ বৈঠকে) বসা অবস্থায় দুই সেজদা (সাহ্উ) দেবে।’ (তিরমিজি)

>> হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, ‘রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেছেন, ‘তোমাদের কারো কারো সালাত আদায়কালে শয়তান আসে এবং সালাতের বিষয়ে সন্দেহে ফেলে দেয়। ফলে সে (সালাত আদায়কারী) বুঝতে পারে না কত রাকাআত (সালাত) আদায় করলো। তোমাদের কারো যদি এ রকম কিছু হয়, তবে (শেষ বৈঠকে) বসা অবস্থায় সে যেন দুই সেজদা (সাহ্উ) আদায় করে।’ (তিরমিজি)

এ অবস্থায় করণীয় সম্পর্কে প্রিয়নবির ঘোষণা

হজরত আবদুর রহমান ইবনে আওফ রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, তিনি বলেন, ‘রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে বলতে শুনেছি, তোমাদের কারো যদি সালাতে (নামাজে) ভুল হয়ে যায়। ফলে সে এক রাকাআত পড়ল না দুই রাকাআত পড়ল, তা যদি বুঝতে না পারে, তবে সে যেন এক রাকাআতকেই ভিত্তি হিসেবে ধরে নেয়।

এমনিভাবে দুই রাকাআত পড়ল না তিন রাকাআত পড়ল, তা যদি বুঝতে না পারে, তবে সে যেন দুই রাকাআতকে ভিত্তি হিসেবে ধরে।
আর যদি তিন রাকাআত পড়ল না চার রাকাআত তা যদি বুঝতে না পারে, তবে সে যেন তিন রাকাআতকে ভিত্তি হিসেবে ধরে। (এ সব ক্ষেত্রে) সে যেন সালামের আগে দুই সেজদা (সাহ্উ) করে নেয়।

হাদিসের অন্য বর্ণনায় এসেছে, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেছেন, ‘তোমাদের কারো যদি এক রাকাআত না দুই রাকাআত (নামাজ পড়েছ) এ বিষয়ে সন্দেহ হয়, তবে এক রাকাআত ধরবে; আর যদি দুই রাকাআত না তিন রাকাআত এই বিষয়ে সন্দেহ হয়, তবে দুই রাকাআত ধরবে এবং এই কারণে সালাম ফেরনোর আগে দুই সিজদা (সাহ্উ) আদায় করবে।

তবে আলেমদের মধ্য থেকে কেউ কেউ বলেন, ‘কারো যদি সালাতে সন্দেহ হয় এবং কত রাকাআত নামাজ আদায় করেছে তা বুঝতে না পারে, তবে তাকে পুনরায় সালাত আদায় করতে হবে।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে নামাজের রাকাআত সংখ্যায় বেখেয়াল হয়ে গেলে হাদিসের আলোকে বাকি নামাজ আদায় করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন