প্রবাদ এর সেরা কিছু বানী ।

লোকপরম্পরাগত বিশেষ উক্তি বা কথন। জীবন, জগৎ ও সমাজ সম্পর্কে মানুষের বাস্তব অভিজ্ঞতাপ্রসূত এই প্রবাদ লোকসাহিত্যের একটি বিশেষ শাখা। প্রবাদ অতীতের বিষয় হয়েও সমকালকে সবচেয়ে বেশি স্পর্শ করে। আধুনিক যুগে প্রায় সব ধরনের রচনায় প্রবাদ ব্যবহূত হয়। কবিতা, প্রবন্ধ, উপন্যাস, নাটক, সংবাদপত্র, বিজ্ঞাপন, বক্তৃতা, এমনকি দৈনন্দিন কথাবার্তায়ও প্রবাদের ব্যবহার লক্ষ করা যায়। প্রবাদ ক্ষুদ্রতম রচনা; একটি সংক্ষিপ্ত বাক্য থেকে ছন্দোবদ্ধ দুই চরণ পর্যন্ত এর অবয়বগত ব্যাপ্তি। তবে ক্ষুদ্র হলেও তা পূর্ণাঙ্গ ভাবদ্যোতক ও অর্থবহ হয়ে থাকে। যেকোনো প্রবাদ মানুষের ব্যবহারিক জ্ঞান, অভিজ্ঞতা বা উপলব্ধি থেকে জন্ম নেয়। ‘অতি সন্ন্যাসীতে গাজন নষ্ট’, ‘চোর পালালে বুদ্ধি বাড়ে’, ‘জোর যার, মুলুক তার’ ইত্যাদি প্রবাদের গড়ন অাঁটসাট; বাড়তি একটি শব্দও নেই। স্বল্প কথায় এত বেশি অর্থবহন-ক্ষমতা প্রবাদ ছাড়া লোকসাহিত্যের অন্য কোনো শাখার নেই।

০১. যে দিন যায় সেদিন আর আসে না !!

০২. পোলার বুদ্ধি গলায় !!

০৩. এক দেশের গালি, আরেক দেশের বুলি !!

০৪. যে দেশে যা ভাও, উপুড় করে নৌকা বাও !!

০৫. একবার না পারিলে দেখ শতবার !!

০৬. যা গেছে বয়ে, কী হবে কয়ে !!

০৭. সেই রামও নাই, সে অযোধ্যাও নাই !!

০৮. যারা সব জিনিসেরই একটা সুন্দর অর্থ খোঁজেন তারা সব সময়েই সৎ কাজ করেন। অর্থ দিয়ে যে কাজ সমাধা হয়, তার জন্য বিপদাপন্ন করো না তোমার জীবন। !!

০৯. প্রেমের বেলায় ঘন্টার অনুপস্থিতিকে মাস, দিনের অনুপস্থিতিকে বছর ও অল্প সময়ের অনুপস্থিতিকে অনন্তকাল সময়ের অনুপস্থিতি বলে মনে হয় !!

১০. হয়ে যাওয়া আর হবু, এক হয় না কভু !!

১১. মন যখন ঘুরে বেড়ায় কান আর চোখ তখন অকেজো হয়ে দাড়ায় !!

১২. নারীর বয়স তার দেহে পুরুষের বয়স তার মনে !!

১৩. রাজায় রাজায় যুদ্ধ হয়, নলখাগড়ার প্রাণ যায় !!

১৪. এমনিতেই নাচুনি বুড়ি, তার উপর ঢোলের বাড়ি !!

১৫. বাশের চেয়ে কঞ্চি মোটা !!

১৬. ধরা বান্ধার হাই, রাইত পোয়াইতে নাই !!

১৭. যে গাই দুধ দেয় এর লাথিও মধুর !!

১৮. অল্প শোকে কাতর অধিক শোকে পাথর !!

১৯. আপনি গেলে ঘোল পায়না চাকর কে পাঠায় দুধের তরে !!

২০. মা’র জ্বলে না – মাসীর জ্বলে !!

২১. চোরের দশ দিন, গিরস্তের এক দিন !!

২২. ওস্তাদের মাইর শেষ রাইতে !!

২৩. গাছে কাঁঠাল গোফে তেল !!

২৪. এক গোয়ালে বিয়াইছে গাই – সেই রিস্তায় খালাতো ভাই !!

২৫. উপকারী গাছের ছাল থাকে না !!

২৬. আকাইম্যা মাইনষ্যের কথা বেশি !!

২৭. আমিও রারি(বিধবা) হইলাম – রঙ বিরঙ্গের শাড়িও বাইর হইল !!

২৮. আমি ছাড়তে চাইলে কি হইব – কম্বল তো আমারে ছাড়ে না !!

২৯. আমি কই কি! আমার সারেন্দা বাজায় কি !!

৩০. আ-লো সোনাভানের মা – কথার পুটুলি জান, কাম জাননা !!

৩১. ভাত জোটে না – দুধ রোজ !!

৩২. যেই ছাও ওড়ে, ঘরের ভিতরেই ওড়ে !!

৩৩. বাড়ির গরু কোলার ঘাস খায় না !!

৩৪. উচিত কথার ভাত নাই !!

৩৫. কুত্তারে যাই তেলুই দিতে – কুত্তায় যায় গু খাইতে !!

৩৬. শুয়োরের কপালে সিন্দুর লাগে না পশমের জালায় !!

৩৭.কু ত্তার পেটে ঘি সয় না !!

৩৮. এক পোলা যার – হাজার নান্নত তার !!

৩৯. যার বিয়া তার খবর নাই, পাড়াপড়শির ঘুম নাই !!

৪০. সারা রাইত মারলাম সাপ – জাইগ্যা দেখি দড়ি !!

৪১. ছাল নাই কুত্তার বাঘা ফাল !!

৪২. দাঁ এর চেয়ে আছাড় বড় !!

৪৩. ভাত খাইতে বাসন নাই, থালের গড়াগড়ি !!

৪৪. চোরের মা’র বড় গলা !!

৪৫. আপন গাঁয়ে শিয়াল রাজা !!

৪৬. খালি কলসি বাজে বেশি ভরা কলসি বাজে না !!

৪৭. বাপের নাম কুদ্দুস – পোলায় করে দুধ রোজ !!

৪৮. ঝি কে মেরে বউকে বুঝানো !!

৪৯. শুকাইলেও আদার ঝাঝ যায় না !!

৫০. ভাত পায় না – ছালুন ছালুন করে !!

৫১. কাজীর গাই কিতাবে আছে – গোয়ালে নাই !!

৫২. পাগলে কি না কয়!! ছাগলে কি না খায় !!

৫৩. মাতেনা কইন্ন্যায় মাতা নারে…ই কইন্নায় ফুরুস মারে !!

৫৪. যার যে সয় বুড়া অইলে বেশ অয় !!

৫৫. বাপে না গুতে , চুঙ্গা ভরি মুতে !!

৫৬. তিন দিনর চান্দ অইলে দুআরও বৈয়া দেখা যায় !!

৫৭. বাফে দেখছেনা ঘোড়ার পেল, পুয়া ঘুড়া দৌড়ায়া মুকিতলা বায়্দী গেল !!

৫৮. গরীবর গরিবানা, নুন দিয়া পিটা খানা !!

৫৯. আইতে জাইতে পচার বাপ, আম পাকলে মৌয়া !!

৬০ . জমানারে ধরছে ভুতে, যুবা নারীয়ে চাটিত মুতে !!

নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন