যে তিনটি জিনিসের মধ্যে আরোগ্য রয়েছে?

আল্লাহ তা‘আলা প্রতিটি রোগের আরোগ্য নির্ধারণ করে রেখেছেন। হাদীসে তিনটি বিষয় বলা হয়েছে। যাতে রোগের আরগ্য রয়েছে। তবে কোন রোগ এবং ব্যবহার পদ্ধতি সর্ম্পকে কিছু বলা হয়নি। এজন্য এ হাদীসের ওপর আমল করতে হলে বিজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।

হাদীসে বর্ণিত দুটি বিষয় থেকে উপকৃত হওয়ার বৈধতা রয়েছে। তৃতীয়টি থেকে নেই। যদিও তৃতীয়টিতে আরোগ্য রয়েছে। এ বিষয়ে হাদীসে এসেছে, ইবনু আব্বাস (রাঃ) এর সুত্রে নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ রোগমুক্তি তিনটি জিনিসের মধ্যে নিহিত। শিঙ্গা লাগানোতে, মধু পানে এবং আগুন দিয়ে গরম দাগ দেয়ার মধ্যে। তবে আমি আমার উম্মতকে আগুন দিয়ে গরম দাগ দিতে নিষেধ করি। বুখারি , হাদীস নং ৫২৭৯

অন্য হাদীসে এসেছে, জাবির ইবনু আবদুল্লাহ (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে বলতে শুনেছিঃ তোমাদের ঔষধসমূহের কোনটির মধ্যে যদি কল্যান বিদ্যমান থেকে থাকে তাহলে তা রয়েছে শিঙ্গা লাগানোর মধ্যে কিংবা মধু পানের মধ্যে কিংবা আগুনের দ্বারা ঝলসিয়ে দেয়ার মধ্যে। তবে তা রোগ অনুযায়ী হতে হবে। আর আমি আগুন দ্বারা দাগ দেওয়াকে পছন্দ করি না। বুখারি হাদীস নং ৫২৮১।

আরেক হাদীসে এসেছে, আনাস (রাঃ) থেকে বর্ণিত যে, তাকে শিঙ্গা প্রয়োগের পারিশ্রমিক প্রদানের ব্যপারে প্রশ্ন করা হয়েছিল। তিনি বললেনঃ রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম শিঙ্গা লাগিয়েছেন। আবূ তায়বা তাকে শিঙ্গা লাগায়। এরপর তিনি তাকে দুই সা’ খাদ্যবস্তু প্রদান করেন। সে তার মালিকদের সঙ্গে এ ব্যাপারে আলোচনা করলে তারা তার থেকে পারিশ্রমিকের পরিমান কমিয়ে করে দেয়।

নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আরো বলেন, তোমরা যে সকল জিনিসের দ্বারা চিকিৎসা কর সেগুলোর মখ্যে সবচেয়ে উত্তম হল শিঙ্গা লাগানো এবং সামুদ্রিক চন্দন কাঠ ব্যাবহার করা। তিনি আরো বলেছেন, তোমরা তোমাদের শিশুদের জিহবা তালু টিপে কষ্ট দিও না। বরং তোমরা চন্দন কাঠের (ধোয়া) ব্যবহার কর। বুখারি , হাদীস নং ৫২৯৩

নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন