মিথ্যাবাদী চিনে নেয়ার কৌশল !!

বিচিত্র এই পৃথিবী, বিচিত্র এই মানুষ। জীবনের সকল ক্ষেত্রে সত্যের সঙ্গে  মিথ্যা অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িত। হাজারো মিথ্যার মাঝে সত্যকে খুজে ফেরা কষ্ট সাধ্য ব্যাপার। ধরা ছোঁয়ার বাহিরে থেকে যায় মিথ্যুক। প্রতারিত হয় মানুষকে। কিন্তু এই মিথ্যাবাদীকে আপনি সহজেই ধরে ফেলতে পারেন কয়েকটি কৌশলে। আসুন জেনে নেয়া যাক ————-

১. মিথ্যুক ব্যক্তি কখনই চোখের দিকে তাকিয়ে কথা বলতে পারবে না। ডানে,বায়ে, নিচে অথবা চারপাশে তাকাতে থাকবে কথা বলার সময়। কিংবা ক্ষনিকের জন্য আপনার চোখের দিকে তার পরক্ষণেই চোখ সরিয়ে নিবে।

২. একজন মিথ্যবাদী আপনার দিকে না তাকিয়ে কথা বলবে। সে চেষ্টা করবে মুখ ঘুরিয়ে বা অন্য কোন দিকে তাকিয়ে কথা বলার।

৩. মিথ্যা কথা কখনই এক থাকে না। আপনি যতবার তাকে বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন করবেণ ততবার এটি পরিবর্তন হবে।

৪. মিথ্যুক ব্যক্তি প্রয়োজনীয় কথার চেয়ে অপ্রয়োজনীয় কথা বেশি বলে থাকে। তাকে যে বিষয়ে প্রশ্ন করা হবে, সে বিষয়ে কথা বলার চেয়ে অন্য কোন বিষয়ে কথা বলতে বেশি আগ্রহী হয়ে থাকে।

৫. মিথ্যাবাদীরা প্রফোশনাল অভিনেতা বা অভিনেত্রী নয়। তারা যখন মিথ্যা বলবে কিছুটা তোতলামি দেখা যাবে। অনেকের ক্ষেত্রে এটি না হলেও বেশিরভাগ মানুষই মিথ্যা বলার সময় নার্ভাস থাকেন।

৬. মিথ্যা বলার সময় বেশিরভাগ মিথ্যাবাদীর মুখের হাসি কম থাকে, চোখের পাতা বারবার পড়ে, গলার স্বর নেমে যায় ইত্যাদি নানান পরিবর্তন দেখা যায়।

৭. একজন মিথ্যাবাদী প্রশ্নের উত্তরে আপনার কথাই ব্যবহার করে উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করবে।

৮. মিথ্যাবাদীরা কখনই ঘটনার গভীরে যেতে চায় না। ঘটনার গভীরের কথা জিজ্ঞেস করলে তারা সব কথা এলোমেলো করে ফেলে।

৯. একজন সত্যবাদী ব্যক্তি শত জেরার মুখে তার কথাতেই অটল থাকবে, তা পরিবর্তন করবে না। কিন্তু একজন মিথ্যাবাদী তার কথা পরিবর্তনের সাথে সাথে নিজেকে রক্ষার চেষ্টা করবে।

১০. মিথ্যাবাদী চেষ্টা করবে প্রশ্নের উত্তরে মুখে কোন উত্তর না দিয়ে ইশারা ইঙ্গিতে উত্তর দিতে।

১১. মিথ্যা বলার সময় মিথ্যুকরা সাধারণত মাথা চুলকায়, হাত কচলায় কিংবা কিছুক্ষণ পরপর নাক চুলকাতে থাকে।

১২. একজন মিথ্যাবাদী কিছুক্ষণ পর পর কথার টপিক পরিবর্তন করে থাকে। টপিক পরিবর্তন করে সে সত্যকে ঢেকে দেওয়ার চেষ্টা করে থাকে।

নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন