নামাজ ছাড়াও আর যে যে কারণে আজান দিতে হয়

ইসলামে আজান দেওয়া চমৎকার একটি বিধান। আল্লাহ তায়ালার মহিমান্বিত নাম উচ্চারণের সাথে সাথে এর মাধ্যমে মুমিন-মুসলিম বান্দাকে আল্লাহর বিধানের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়া হয়। সাধরাণত আমাদের মধ্যে প্রচলিত হলো যে, নামাজের সময় হলেই কেবল আজান দিতে হবে। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে আজান কেবল মাত্র পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের জন্যেই নির্ধারিত নয়, বরং ইসলামের আরো অনেকগুলি ক্ষেত্রে আজান দেয়া সুন্নাত বলে বর্ণিত হয়েছে।

নামাজ ছাড়াও আজানের সুন্নাত ক্ষেত্রগুলো হলো-

১. শিশু জন্ম নিলে নবজাতক শিশুর কানে আজান দেয়া।
২. প্রচণ্ড যুদ্ধ ও শত্রুপক্ষের হামলার সময়।
৩. ভীষণ ঝড়-তুফানের সময়।
৪. কোনো ব্যক্তি বেহুঁশ হয়ে পড়লে, তখন অচেতন ব্যক্তির কানে আজান দেয়া।
৫. ভয়ের মাত্রা বেশি হলে।
৬. ঘর-বাড়িতে আগুন লাগলে।
৭. রোগাক্রান্ত মুমূর্ষু ব্যক্তির কানে।
৮. মৃগী রোগী অসুস্থ হয়ে পড়লে তার কানে।
৯. জ্বিন-ভূতে আক্রান্ত ব্যক্তির কানে।
১০. মুসাফির ব্যক্তি পথ হারিয়ে ফেললে কিংবা দলছুট হয়ে গেলে উল্লিখিত স্থানে ও পরিস্থিতিতে আজান দেয়া সুন্নাত।

নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন