যে দোয়া একবার পাঠ করলে দূর হবে ৭০টি বিপদ!

হযরত আবু নাঈম ও ইবনে আবি শায়বা রহ. একটি আমলের কথা বর্ণনা করেছেন। তাঁরা বলেন, যে ব্যক্তি নিম্নের দুয়া একবার পাঠ করবে- একশ’ বার নয়, মাত্র একবার- আল্লাহ তায়ালা তার সত্তরটি বিপদ দূর করে দিবেন। আর সর্বনিম্ন বিপদ হল দারিদ্রতা।

আর অন্যান্য বিপদগুলো এর চেয়ে অনেক বড় বড়।
দোয়াটি হলো:- لاحول ولاقوة الا بالله ولاملجا ولامنجا من الله الا اليه
বাংলা উচ্চারণ:- লা হাউলা ওয়া লা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহি ওয়ালা মালজাআ ওয়ালা মানজাআ মিনাল্লাহি ইল্লাহ ইলাইহি।
দোয়াটি মুখস্থ থাকলে তো ভালো। না থাকলে মুখস্থ করে নিন।

নিয়মিত পাঠ করুন। সব রকম সমস্যা থেকে নাজাত পাবেন, ইনশাআল্লাহ।
দুঃশ্চিন্তাগ্রস্তদের জন্য সান্তনা: কানযুল উম্মালে বর্ণিত আছে, যে ব্যক্তি ইয়াকিন ও দৃঢ় বিশ্বাসের সাথে এই আয়াতটি পাঠ করবে, আল্লাহ তায়ালা তার দুঃশ্চিন্তাগ্রস্ত হৃদয়কে প্রশান্তি দান করবেন।

لا إِلَهَ إِلا أَنْتَ سُبْحَانَكَ إِنِّي كُنْتُ مِنَ الظَّالِمِينَ এখানে ইয়াকিন ও দৃঢ় বিশ্বাসের শর্তারোপ করা হয়েছে। কারো অন্তরে এ ব্যাপারে সন্দেহ থাকলে সে সুফল পাবে না।
অবশেষে বেরিয়ে আসলো কলেজছাত্র রওনক হত্যার আসল কারণ
ত্রিভুজ প্রেমের বলি হলো পুরাণ ঢাকার শাঁখারিবাজারের কলেজ ছাত্র রওনক হাসান।
গত ১ মার্চ হলী উৎসবের সময় তার পরিচিত জনেরা ছুরিকাঘাতে হত্যা করে। এ ঘটনায় গতকাল সোমবার রাতে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- রিয়াজ আলম ওরফে ফারহান, ফাহিম আহাম্মেদ ওরফে আব্রো, ইয়াসিন আলী, আলামিন ওরফে ফারাবি খান ও লিজা আক্তার মাইসা। গ্রেফতারকৃতদের কাছ থেকে হত্যায় ব্যবহারিত একটি চাকু উদ্ধার করেছে পুলিশ।

নিহত রওনক আজিমপুর নিউ পল্টন লাইন স্কুল অ্যান্ড কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র ছিল। তার বাবার নাম শহীদ মিয়া। তার বাড়ি কামরাঙ্গীরচরে।
গ্রেফতারকৃত পাঁচজন
আজ মঙ্গলবার ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে লালবাগ বিভাগের উপকমিশনার ইব্রাহিম খান বলেন, প্রেমের ঘটনার জের ধরে রওনককে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করা হয়েছে।

রওনকের সাথে মাইসা নামের এক তরুণীর প্রেমের সম্পর্ক ছিল। সেই সম্পর্ক ছিন্ন করে রওনক তুহু নামের আরেক তরুণীকে পছন্দ করতে থাকে। তুহুর সাথে আরেক ছেলের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। ওই ছেলে বিষয়টি জানার পর রওনককে খুন করার পরিকল্পনা নেয়।

১ মার্চ লক্ষ্মীবাজারের কেএফসির সামনে তারা একত্রিত হয়।
এসময় রওনককে বাসা থেকে ডেকে আনার জন্য মাইসাকে কাজে লাগায়। ওইদিন দুপুরে শাঁখারিবাজারে হলী উৎসবের কাছে রওনক ও মাইসা দেখা করে। এসময় তুহু’র প্রেমিক ও ৪-৫জন ছেলে সহ রওনকের সাথে ইচ্ছা করে কথা কাটাকাটিতে জড়িয়ে পড়ে।

তারা রওনককে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তাকে নেয়া হলে চিকিৎসকেরা মৃত ঘোষণা করে।

 

প্রশ্ন-উত্তরে অংশগ্রহণ করে অর্থ উপার্জন জন্য এখানে নিবন্ধন করুন, বিস্তারিত জন্য এখানে প্রবেশ করুন