কালো ঠোঁট থেকে মুক্তি পাবার কার্যকরী উপায় !

কালো ঠোঁট কারও পছন্দ নয়। তবে ঠোঁট কালো হবার পরই তা আমাদের চোখে পরে। ঠোঁট কালো হবার সাথে সাথে এটি নিজের উজ্জ্বলতা হারায়। আপনি স্বাস্থ্যকর খাবার খাচ্ছেন, ঠিকমত শরীরচর্চা করছেন এবং দামী পণ্য ব্যবহার করছেন তারপরও ঠোঁটের কাল দাগ যাচ্ছে না! তাই এখানে প্রাকৃতিক কিছু উপায় দেয়া হল। জার সাহায্যে আপনি সহজেই আপনার ঠোঁটের কালো দাগ দূর করতে পারবেন।

১. সপ্তাহে একবার স্ক্রাব ঠোঁটে স্ক্রাব করা হলে চামড়ার মরা কোষগুলো উঠে যায়। এতে আপনার ঠোঁটের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে। স্ক্রাব তৈরি করতে কয়েক ফোটা অলিভের তেল ও এক চা চামচ চিনি একত্রে মিশিয়ে নিন। এবার তা আপনার ঠোঁটে লাগিয়ে রাখুন। এটা ধুয়ে ফেলার পর আপনার প্রিয় লিপ বাম বা মাখন লাগিয়ে রাখুন।

২. লেবু ঠোঁটের কালো রঙ থেকে মুক্তি পাবার জন্য সবচেয়ে বেশি কার্যকরী হল লেবু। লেবুর রস আলাদা বের করে রাখুন। ঘুমাতে যাবার পূর্বে লেবুর রস আপনার ঠোঁটে লাগিয়ে নিন। প্রতিদিন এভাবে লেবুর রস লাগিয়ে ঘুমাতে যাবার এই অভ্যাস আপনাকে মাসব্যাপী পালন করতে হবে। এতে আপনার ঠোঁট আবার গোলাপি রঙ ধারণ করবে

নাশপাতি একটি রসালো বিদেশি ফল। তবে বাংলাদেশেও এই ফলটি পর্যাপ্ত পরিমাণে পাওয়া যায়। ফলটির ৮৩ শতাংশই পানিতে পরিপূর্ণ। এই ফলের বেশ স্বাস্থ্যকরী গুণাগুণ রয়েছে।

সাম্প্রতিক এক গবেষণায় বলা হয়েছে, রক্তচাপ, রক্তনালীর কার্যাবলী এবং মেটাবলিক সিনড্রোম (মেটস) স্বাভাবিক থাকে নিয়মিত নাশপাতি খেলে। মেটস কার্ডিওভ্যাসকুলার (হৃদপিণ্ড ও রক্তনালীর সঙ্গে সম্পর্কিত) ঝুঁকি তৈরি করে।কার্ডিওভ্যাসকুলার এবং টাইপ-২ ডায়াবেটিস ইত্যাদি রোগ তৈরিতে শক্তিশালী যোগসূত্র রয়েছে মেটসের। নাশপাতি বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয় একটি ফল।

এতে পর্যাপ্ত পরিমাণে আঁশ এবং ভিটামিন-সি রয়েছে। এতে ক্যালোরির পরিমাণ ১০০। একটি মাঝারি আকৃতির নাশপাতিতে ২৪ শতাংশ আঁশ থাকে। তিন থেকে পাঁচটি মেটসের লক্ষণ রয়েছে এমন ৪৫ থেকে ৬৫ বছর বয়সী ৫০ জন ব্যক্তির ওপর গবেষণা চালানো হয়। গবেষণায় অংশগ্রহণকারী প্রত্যেককে প্রতিদিন দুটি মাঝারি আকারে নাশপাতি অথবা ৫০ গ্রাম নাশপাতি স্বাদের পানীয়র মিশ্রণ ১২ সপ্তাহ খেতে দেয়া হয়।

গবেষণার ফলাফলে দেখা যায়, ১২ সপ্তাহ নাশপাতি খাওয়ার পর ৩৬ জন অংশগ্রহণকারীর সিস্টোলিক রক্তচাপ এবং নাড়ি স্পন্দন স্বাভাবিক মাত্রার চেয়ে কমে গিয়েছিল। সেখানে কন্ট্রোল গ্রুপের কোনো পরিবর্তন ছিল না। যুক্তরাষ্ট্রের কলোরাডো স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক এবং প্রধান লেখক সারাহ এ জনসন বলেন, গবেষণার প্রাথমিক ফলাফল বেশ আশাব্যঞ্জক। নাশপাতি মধ্য বয়স্কদের কার্ডিওভ্যাসকুলার রোগ এবং রক্তচাপের ঝুঁকি স্বাভাবিক রাখে

 

প্রশ্ন-উত্তরে অংশগ্রহণ করে অর্থ উপার্জন জন্য এখানে নিবন্ধন করুন, বিস্তারিত জন্য এখানে প্রবেশ করুন