অপেক্ষায় আইরিন

২০১১ সালের দিকে র‌্যাম্প থেকে চলচ্চিত্রের খাতায় নাম লেখান গ্ল্যামারাস কন্যা আইরিন। এরপর একে একে বেশ কয়েকটি ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হয়ে কাজ করেন তিনি। যার ফলে র‌্যাম্প ও ছোট পর্দার কাজ একেবারেই কমিয়ে দেন আইরিন।

এদিকে সাইফ চন্দন পরিচালিত ‘ছেলেটি আবোল তাবোল মেয়েটি পাগল পাগল’ ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হয়ে প্রথমবারের মতো আলোচনায় আসেন তিনি। তারপরই চুক্তিবদ্ধ হয়ে টানা কাজ করেন দেবাশীষ বিশ্বাসের ‘ভালবাসা জিন্দাবাদ’ ছবিতে। এ ছবিটিই আইরিনের প্রথম ছবি হিসেবে মুক্তি পায়। ছবিটির মাধ্যমে নিজের একটি সম্ভাবনার জানান দিয়েছিলেন আইরিন। এরপর প্রায় হাফ ডজন ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হয়ে অভিনয় করেন এ অভিনেত্রী। এ ছবিগুলো হলো ‘এক পৃথিবী প্রেম’, ‘টার্গেট’, ‘ভালবাসা প্রেম নয়’, ‘লুকোচুরি প্রেম’ ও ‘তোকে হেব্‌বি লাগছে’। ক’দিন আগেই আইরিন অভিনীত ‘ইউটার্ন’ ছবিটি মুক্তি পেলেও সেটি বক্স অফিসে মুখ থুবড়ে পড়ে। আইরিনও তেমন একটা কারিশমা দেখাতে পারেননি এ ছবির মাধ্যমে। এদিকে ধারাবাহিকভাবে এতগুলো ছবিতে অভিনয় করলেও মুক্তির দিক দিয়ে এখনও পিছিয়ে আছেন আইরিন। ‘ভালবাসা জিন্দাবাদ’-এর পর গড়িয়েছে দুই বছরেরও বেশি সময়। এরপর দ্বিতীয় ছবি হিসেবে মুক্তি পায় ‘ইউটার্ন’। কিন্তু শেষ হয়েও আইরিনের অপেক্ষা যেন শেষ হচ্ছে না। ক’দিন আগেই সেন্সর ছাড়পত্র পেয়েছে ‘ছেলেটি আবোল তাবোল মেয়েটি পাগল পাগল’ ছবিটি। আর এ ছবিটি মুক্তির প্রহরই দীর্ঘ সময় ধরে গুনছেন আইরিন। কারণ এ ছবিতে তাকে পরিপূর্ণ নায়িকা হিসেবে দেখা যাবে। এখানে বেশ গ্ল্যামার নিয়ে যেমন উপস্থাপিত হয়েছেন তিনি, তেমনি অভিনেত্রী হিসেবেও নিজেকে প্রমাণের সুযোগ পেয়েছেন।

এ বিষয়ে এই অভিনেত্রী বলেন, অনেক ছবিতেই অভিনয় করছি। তবে আমি চেয়েছিলাম ‘ছেলেটি আবোল তাবোল মেয়েটি পাগল পাগল’ ছবিটি আগে মুক্তি পাক। কারণ এটি একটি পরিপূর্ণ বাণিজ্যিক ছবি। তারপরও সুখবর হলো ছবিটি সেন্সর ছাড়পত্র পেয়েছে। অক্টোবরে ছবিটি মুক্তি পাওয়ার কথা রয়েছে। এর পাশাপাশি আমার আরেক ছবি ‘এই তুমি সেই তুমিও’ একই মাসে মুক্তির কথা রয়েছে। তাই হয়তো আমার অপেক্ষার প্রহর শেষ হতে চলেছে। এ ছবি দুটি আমার ক্যারিয়ারে নতুন মাত্রা যোগ করবে বলেই বিশ্বাস।

ফেসবুকে আমার সাথে যোগাযোগ করতে“এখানে ক্লিক করুন”

নিয়মিত আপডেট পেতে লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন